গরীব দেশের শিশু ও তাদের আর্তনাদ

মোঃ জিয়াউর রহমান

0 ১৪৮

শিশু। মহানসৃষ্টিকর্তা কর্তৃক প্রেরিত মানব প্রতিনিধি। একটি শিশু, একটি মানব, একটি জাতির মুক্তি, একটি রাষ্ট্র, একটি বিশ্ব, একটি বিশ্বমানবতার প্রতীক। একটি শিশু কোন পরিবারের বংশধর হিসাবে বিবেচিত হয়, আসলে সে কোন জাতির বংশধর, আবার বিশ্বমানবের বংশধর। অথচ সকল শিশুর পৃথিবীতে একই রকমের সুযোগ সুবিধা পাওয়ার অধিকার থাকলেও দেশ, জাতি, সমাজ ভেদে শিশুরা আজ চরম বৈষম্যের শিকার। শুধু বৈষম্য নয়, বেঁেচ থাকার জন্য জীবন-যুদ্ধের শিকার, দু-মুঠো ভাতের জন্য রাস্তায় বাস্তায় ভিক্ষার শিকার, শিশু শ্রমের শিকার, অপুষ্টির শিকার, শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চনার শিকার, স্বাস্থ্যের অধিকার থেকে বঞ্চনার শিকার, বাসস্থানের অধিকার থেকে বঞ্চনার শিকার, সমাজের নিগৃহের শিকার, অনিশ্চিত ভবিষ্যতের শিকার, দারিদ্রের শিকার, মৌলিক চাহিদা বঞ্চনার শিকার, বিশ্বামানবতার অবহেলার শিকার, বিশ্বনেতৃবৃন্দের মানবিক ভালবাসার অবহেলার শিকার।

সৃষ্টির সেরা মানব শিশু গরীব দেশে জন্ম নেওয়ায় শুধু বঞ্চনা, বঞ্চনা আর বঞ্চনার শিকার, মানব শিশু আজ সবচেয়ে অবহেলিত, আগামীর যোগ্য উত্তরসূরি আজ চরম অনিশ্চয়তায়, আগামীর ভবিষ্যৎ পৃথিবীতে আজ অসহায়, ধনীদের অবহেলা আর উপেক্ষিত পাত্র। সভ্য পৃথিবী আজ বড় নিরব, মানবিকতা আজ বড়ই বিপন্ন। ধনীরা ভাবে না আজকের দারিদ্রের কষাঘাতে জর্জরিত শিশু ভবিষ্যতে তাদের আলোর পথ দেখাতে পারে। তাদের অভিভাবকরূপে আবির্ভাব হতে পারে। ধনীদেশগুলো ভাবে না কোন একদিন গরীব দেশের শিশুরা তাদের নেতৃত্ব দিতে পারে। ভবিষ্যৎ পৃথিবী তাদের দ্বারা পরিচালিত হতে পারে।  বর্তমান বিশ্বের নেতৃবৃন্দের গরীব দেশের কোন শিশুর দ্বারা মূল্যায়িত হতে পারে। হতে পারে সবচেয়ে অবহেলিত শিশু বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব। হতে পারে বিশ্বের  সেরা মানবিক ব্যক্তিত্ব, সেরা বিজ্ঞানী। একটি  দরিদ্র পরিবারের শিশু আর একটি ধনী পরিবারের শিশু একই সম্ভাবনাময়। কোন শিশুর সম্ভাবনা কম-বেশী নয়, সমান সম্ভাবনার অথচ ধনী-দরিদ্রের বৈষ্যমের প্রভাব প্রথমে শিশুর উপর আঘাত হানে। ধনী-দরিদ্রের বৈষ্যমের ফলে শিশুদের উপর কতটা আঘাত হানে তা গবেষণার আলোচনায় নিয়ে আসা প্রয়োজন। একটি শিশুর উপর আঘাত ঐ রাষ্ট্রের উপর আঘাত, ভবিষ্যত কর্ণধারের উপর আঘাত, বিশ্বমানবতার উপর আঘাত, বিশ্বনেতৃবৃন্দের মানবিক অনুভূতির উপর আঘাত।

বিশ্ব যাদের হাত ধরে পরিবর্তিত হয়ে থাকে তারা হলেন সৃষ্টিশীল মানবিক মানুষ, মানবিক রাজনৈতিক নেতৃত্ব, আর সৃষ্টিশীল বিজ্ঞানী। অথচ আজ তাদের অন্তরে গরীব দেশের শিশুরা নেই, তাদের চিন্তায় বঞ্চিত শিশুর কষ্ট নেই, তাদের কর্মকান্ডে হত-দরিদ্র শিশুর মুক্তি নেই, লাখো চেঞ্জমেকাররা আজ অসহায়, দানব পৃথিবীর কাছে বন্দী, হারার আগেই হার মেনে বসে সফলতার ভাব ধরার সুপার-ডুপার অভিনেতা। একটি গরীব দেশের দরিদ্র পরিবারের শিশু কাক ডাকা ভোরে বেরিয়ে যায় খাবারের সন্ধানে, কাজের সন্ধানে, দু-মুঠো ভাতের সন্ধানে, পরিত্যক্ত খাবারের সন্ধানে, ভিক্ষার উদ্দেশ্যে, পরিবারকে দু-মুঠো অর্থ দিয়ে খুশি করার সন্ধানে, একটি ছেঁড়া জামার সন্ধানে, একটি ছেঁড়া প্যান্টের সন্ধানে, এক জোড়া ছেঁড়া জুতোর সন্ধানে, পরিবারে মাকে কিছু দিয়ে সাহায্য করার সন্ধানে, পাথর ভেঙ্গে কিছু উর্পাজন করার সন্ধানে, কোন বিত্তশালীর বাড়ীতে কাজের সন্ধানে, মাকে নিয়ে রাস্তার পাশে বসে ভিক্ষার সন্ধানে। চলন্ত গাড়ীর সামনে এসে ছোট্ট অবুঝ শিশুর কোন কিছুর বিক্রির আকুতি, কখনো এ ধনীদের গাড়ীর গøাস মুছে রাস্তার ট্রাফিক সিগনালে দুটো টাকা উপার্জনের চেষ্টা, বস্তিতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বেড়ে উঠা, অনিশ্চয়তায় নির্ঘুম রাত আর বেড়ে উঠা।

এত অনিশ্চয়তার মধ্যেও তারা সুখে থাকে, বেঁেচ থাকে, টিকে থাকে, জীবনযাপন করে, দেশকে ভালোবাসে, সমাজের মানুষকে ভালোবাসে, নির্বোধ ধনীকে আপন ভাবে, তার অসহায়ত্বে পাশে দাঁড়ায়, অসুখে সেবা করে, মৃত্যুতে কবর খোড়ে, মৃত দেহ স্বযতেœ কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত করে। তব্ওু ধনীদের মন গলে না, গরীব অসহায়ের জন্য জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত তাদের কোন মায়া তৈরি হয় না, তাদের দিকে সহানুভূতির দৃষ্টিতে তাকিয়ে দেখে না, তাদের জন্য ঐ অতৃপ্ত হৃদয়ে অনুভূতি জাগে না, তারা যে একই পৃথিবীর একই মানুষ তাদের ভাবনায় আসে না। এরপরও তারা একবেলা খেয়ে মায়ের দিকে তাকিয়ে সুখের পরিতৃপ্তির হাসি হাসে, ক্ষুধা আর বঞ্ছনার মাঝে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সুখি পরিবার। এই ক্ষনপ্রভা সুখও অনেক সময় স্থায়ী হয় না। কখনো পাচারকারীর কবলে পড়ে অথরে দূরে কোথাও হারিয়ে যাওয়ার ফলে পরিবার থেকে আজীবনের জন্য বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কখনো বা রেল লাইনে কাটা পড়ে অথবা কোন দূর্ঘটনায় চিরতরে বিদায় নেয় পৃথিবী থেকে। পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া হাজার হাজার দরিদ্র শিশুর যেতে হয় কষ্টের অধ্যায়ের মধ্য দিয়ে।

গরীব শিশু। গরীব শিশুর পিতা। গরীব শিশুর মা। এই নিষ্ঠুর পৃথিবীর নির্যাতিত পরিবার। গরীব শিশুর পিতা কৃষিকাজ, শ্রমিক, ক্ষুদ্র ব্যবসা ইত্যাদি কায়্যিক শ্রম দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন। তার শিশু ও পরিবারের সদস্যদের মুখে খাবার তুলে দেন। গরীব পিতা তার সাধ্যমতো চেষ্টা করে তার সন্তানদের আগলে রাখতে। ধনীরা কি গরীব পিতার দিকে কখনো তাকিয়ে দেখেছেন, কতটা জরাজীর্ন তার শরীর, কতটা দূর্বল তার দেহ, কতটা পুষ্টিহীন তার দেহ, কতটা মলিন তার হাসি, কতটা ভগ্ন তার হৃদয়, কতটা নির্মমতার শিকার তার পরিবার, কতটা অবহেলার শিকার এই সমাজে, কতটা অনিশ্চিত ভবিষ্যতের শিকার তার শিশু ও পরিবার। গরীব শিশুর পিতা ধনী দেশে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন, সমগ্র পৃথিবী গরীব অসহায় শিশুর পিতার ভিজা ঘামের শ্রমে পরিচালিত হয় অথচ মানুষ হিসাবে কোন মূল্য নেই, মানুষ হিসাবে কোন মর্যাদা নেই, মানুষ হিসাবে তাদের কোন অধিকার নেই, শুধু ছলচাতুরী আর বঞ্ছনায় আবদ্ধ তাদের জীবন।

ধনীদেশগুলো তাদের শিশুদের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করেছেন। তাদের শিশুদের শিক্ষা নিশ্চিত করেছেন, পুষ্টি নিশ্চিত করেছেন, বেড়ে উঠার জন্য সুন্দর পরিবেশ নিশ্চিত করেছেন, স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতসহ উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছেন, মায়ের গর্ভে একটি শিশু আসার সাথে সাথে তার পরিচর্চার দায়িত্ব নিয়েছেন। একটি শিশু সুস্থ, সবল, সুশিক্ষিত, সুনাগরিক, মানবিক ও কর্মক্ষম হিসাবে গড়ে তোলার জন্য যা প্রয়োজন উন্নত রাষ্ট্রগুলো তা করেছেন। তারা প্রতিটি শিশুর ভবিষ্যৎ গুরুত্ব অনুধাবন করতে সক্ষম হয়েছেন, যা প্রতিটি শিশুর মৌলিক অধিকার। এ জন্য উন্নত দেশেগুলো পৃথিবী বাসীর পক্ষ থেকে ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য। কৃতজ্ঞচিত্তে তারা স্মরণীয় কারন অন্তত তারা নিজের দেশের শিশুর জন্য একটি উন্নত পরিবেশ দিতে সক্ষম হয়েছে। উন্নত দেশের শিশুর মত প্রতিটি গরীব দেশের শিশু একই রকম অধিকার রয়েছে। কিন্তু উন্নত দেশগুলো নিজের শিশুদের বাইরে গরীব দেশের শিশুদের আপন ভাবতে পারেনি, গরীব দেশের শিশুর নিজের সন্তানের মত ভালবাসতে পারেনি, ধনীদেশগুলো গরীবদেশের শিশুদের প্রতি মানবিকতার সর্বোচ্চ চিহ্ন আঁকতে পারেনি, আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে গরীবদেশের শিশুর জন্য প্রতিজ্ঞা করতে দেখা যায় নি, গরীবদেশের শিশুদের জন্য ধনীদেশগুলোর কষ্ট পেতে দেখা যায়নি, চোখের কোণে পানি জমতে দেখা যায়নি, ধনীদেশগুলোর নেতৃবৃন্দের গরীব দেশগুলোর শিশুদের দুঃখ কষ্ট দেখার জন্য ছুটে যায়নি, কথার ছলে গরীবদের আশ্বস্ত করেনি । এটা পৃথিবীর অধিবাসীর জন্য দুঃখজনক, কষ্টদায়ক, মানবিকতার চরম লংঘন।

মানুষকে নিয়ে ভাবনার সময় নেই, দরিদ্র শিশুর ¤øান হাসিকে বুঝবার সময় নেই, দারিদ্র মুক্তির জন্য বাস্তবভিত্তিক উদ্যোগ নেই, গরীবদেশের অপুষ্টিতে ভোগা মুখের হাসির দিকে তাকানোর সময় নেই, মুক্তিকামী মানুষকে নিয়ে ভাবনার সময় নেই, বঞ্চিত মানুষের পক্ষে কাজ করার সময় নেই, সত্যকে তুলে ধরার সময় নেই, সত্যকে জাতি ধর্ম-বর্ণ-অর্থ এর উর্ধে থেকে নির্যাতিত জাতি ও বঞ্চিত মানুষের পক্ষে সত্য স্থাপনে সাহসী ভূমিকা নেই, মানুষকে  মুক্তির জন্য বিনা স্বার্থে কোন আবিষ্কার নেই।

তাহলে জ্ঞানচর্চা ও গবেষণার পবিত্রস্থান কি লাইনচ্যুত হয়েছে। নাকি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো পরিচালনাকারী মানুষগুলো সঠিক পথে নেই। হয়তো একদিন বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সংস্কার করে আবার নতুন আদলে বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি হবে। বদলে যেতে পারে বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্মার্থ ও কার্যক্রম।

বিশ্বনেতৃবৃন্দ কি দেখে না রাস্তা পাশে ফুটপাথে ক্ষুধা ভরা পেটে ঘুমন্ত শিশুর মুখ, রাস্তার পাশে কোন এক কোণে দুটো ইট দিয়ে তৈরি চুলায় মাটির হাঁড়িতে ক্রন্দনরত শিশুর মায়ের রান্নার আয়োজন, শিশুরা হতে পারে বৈষম্যহীনতার প্রতীক, সকলনেতৃবৃন্দের মতৈক্যের প্রতীক, মানবিক পৃথিবী বিনির্মাণের প্রতীক, সংঘাতহীন পৃথিবীর প্রতীক, মানবিকতা জাগ্রতের প্রতীক, হানা-হানী মুক্ত পৃথিবীর প্রতীক, ষড়যন্ত্র মুক্ত পৃথিবীর প্রতীক, শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রতীক, বৈষম্যহীন সার্বভৌমত্বের প্রতীক, অখÐ পৃথিবীর প্রতীক, বিদ্বেষহীন আচরণের প্রতীক, সত্যকে সত্য বলার সাহসীকতার প্রতীক, মিথ্যাকে মিথ্যা বলার দৃঢ়তার প্রতীক, অসম্প্রদায়ীকতার প্রতীক, স্বাধীনতাকামী মানুষের মুক্তির প্রতীক, মানুষ মানুষের জন্য এই সাম্যের গানের প্রতীক, দারিদ্র বিমোচনের প্রতীক, মৌলিক অধিকারের প্রতীক, বৈষম্যহীন উন্নয়নের প্রতীক, একটি অখÐ-বৈষম্যহীন, বর্ডারবিহীন পৃথিবীর প্রতীক, শান্তিকামী মানুষের প্রতীক, মানবিকতার প্রতীক, মহামানবের প্রতীক।

শিশুকে শান্তির প্রতীক হিসাবে বিবেচনা করতে পারলে দেশে দেশে যুদ্ধ বিগ্রহ বন্ধ করা সম্ভব। যখনই শিশুর শান্তির কথা, পারিবারিক নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় নেওয়া হবে তখনই বিবেচনায় আনবে যুদ্ধে একটি  শিশুর মৃত্যু বা কোন ব্যক্তির মৃত্যু যা কোন একটি পরিবারের শিশুকে পারিবারিক নিরাপত্তাহীনতায় ফেলে দিবে। কারণ ঐ ব্যক্তি কোন শিশু আদরের পিতা, অন্নদাতা, রক্ষাকবচ। তাই শিশুর প্রতি ভালবাসা কোন মতেই যুদ্ধকে সমর্থন  করে না, বুলেটের আঘাতে কোন ব্যক্তির মৃত্যুকে সমর্থন করে না। শিশুর প্রতি ভালবাসা পৃথিবীর অনেক অমিমাংসিত সমস্যার সমাধান দিতে পারে। এজন্য প্রয়োজন মানবিক উদ্যোগ। প্রয়োজন বিশ্বনেতৃবৃন্দের নড়া-চড়া, প্রয়োজন ঘুমন্ত পৃথিবীকে জাগ্রত করা।

বিশ্ববিদ্যালয় সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠের স্থান। জ্ঞানের পবিত্রস্থান। যে জ্ঞান মানুষকে মানবিক করবে, মানুষ বিভিন্ন সমস্যা থেকে মুক্তির জন্য নতুন কিছু সৃষ্টি করবে। বিজ্ঞানী, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষক, কৃষিবিদ, মানবিক মানুষ, মানবিক নেতা, সুনাগরিক ও গবেষণার জন্য সৃষ্টি হয়েছিল। আজ পৃথিবীতে হাজার হাজার বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় গুলো টেকনিক্যাল ও চাকরীর উপযোগী দক্ষ জনবল তৈরি করতে সক্ষম হলেও হাজারটা মানবিক মানুষ সৃষ্টি করতে পারেনি। পৃথিবীর লক্ষ বিশ্ববিদ্যালয় যদি হাজারটি মানবিক মানুষ সৃষ্টি করতে ব্যর্থ হয়ে থাকে তাহলে পৃথিবীর লক্ষ বিশ্ববিদ্যালয় কি সফল হয়েছে, নাকি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো ইট, বালু, সিমেন্ট, কাঠ আর রড দিয়ে তৈরি দৃষ্টিনন্দন অবকাঠামো।

উন্নত দেশগুলো হাজার হাজার বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করেছেন। সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর ধনী দরিদ্র সকল দেশের ছাত্রের অধিকার রয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্রের ঘাটতি থাকলে সেখানে গরীব দেশের ছাত্রের শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ নেই। যদি সুযোগ থাকে তাহলে সেটা অর্থ দিয়ে শিক্ষা গ্রহণের জন্য, যা রীতিমতো জ্ঞানচর্চার পবিত্রস্থান আর মানবিক মানুষ সৃষ্টির কারখানা তা এখন বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

দরিদ্র দেশ, দরিদ্র পরিবার, দরিদ্র শিশু, দরিদ্র শিশুর পিতা, দরিদ্র শিশুর মা। সবগুলোর নামের পূর্বে যদি দরিদ্র শব্দ বাদ দেয়া যেত তাহলে আজ দরিদ্রের কষাঘাত থেকে দরিদ্র মানুষগুলো মুক্তি পেত। তাই দরিদ্র দেশ, দরিদ্র পরিবার, দরিদ্র শিশু, দরিদ্র শিশুর পিতা-মাতার একমাত্র মুক্তির পথ দারিদ্র বিমোচন। আর দারিদ্র বিমোচনের একমাত্র কার্যকরী হাতিয়ার হলো মানবিক রাজনৈতিক নেতৃত্ব, কোনো অর্থনীতিবীদের গবেষণাগারে গবেষণা বা ডাটা এনালাইসিস নয়। জয় হোক পৃথিবীর সকল অসহায় দরিদ্র দেশের, দরিদ্র মানুষের, দরিদ্র শিশুর, দরিদ্র শিশুর পিতার। জাগ্রত হোক বিশ্বমানবতা।

মোঃ জিয়াউর রহমান, লেখক ও গবেষক


error: Content is protected !!