সাতক্ষীরা জেলা পানি ব্যবস্থাপনা কমিটির মাইকিং দুশ্চিন্তায় উপকুলীয় অঞ্চলের চিংড়ী চাষীরা

0 ১০১

সিরাজুল ইসলাম, শ্যামনগর থেকে: 

গত কয়েক দিন যাবত জেলা পানি ব্যবস্থাপনা কমিটির গুরুত্বপূর্ণ মাইকিংয়ের কারনে উপক‚লীয় হাজার হাজার চিংড়ি চাষী মারাত্বক চিন্তায় পড়েছে। চিংড়ী হবে কি হবে না তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছে চাষীরা। প্রাপ্ত তথ্য জানা যায় চিংড়ি চাষিদের অপরিকল্পিত ভাবে লবন পানি উত্তোলনের জন্য পাউবো বেড়িবাঁধ ছিদ্র করে অবৈধ পাইপ বসানোর কারনে মারাত্মক ঝুকিতে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধ। এমন কি এসমস্ত কারনে প্রায় পাউবোর বেড়িবাঁধে ধস ও ভাংগনের সৃষ্টি হচ্ছে। এর কারনে প্রতিনিয়ত বিপদে পড়ছে স্ধাারণ মানুষ বাড়ী ঘর গাছ পালা ও গবাদি পশু। 

 এমন নানা বিধ অনিয়মের বিষয়টি বারবার নানা মিটিং সেমিনারে উঠে আসার পর নড়েচড়ে বসেছে সাতক্ষীরা জেলা পানি ব্যবস্তাপনা কমিটি। বিগত কয়েকদিন যাবৎ উপক‚লীয় এলাকায় জেলা  পানি ব্যবস্তাপনা কমিটি মাইকিংয়ে বলা হচ্ছে আগামী ৭ দিনের মধ্যে পাউবোর বাধ থেকে অবৈধ পাইপ ¯øুইজ গেট অভার পাইপ অপসারন করিতে হবে আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে জেল জরিমানা করা হইবে।  এমন মাইকিংয়ের প্রেক্ষিতে মারাত্বক চিন্তায় পড়েছি উপকুলীয় এলাকার চিংড়ী চাষিরা উপকুলীয় এলাকার চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সর্ব স্থরে আলোচনার ঝড় বইছে ২০২২ সাল থেকে চাষ হবে কি, হবেনা।

 কারন চিংড়ি চাষ করতে হলে লবন পানি অবশ্যই লাগবে আর লবন পানি পাইতে হলে পাউবোর ভেড়ী বাঁধ ছিদ্র করে পাইপ অথবা মিনি ¯øুইচ গেট নির্মাণ করে  লবন পানি উত্তোলন করতে হবে। শ্যামনগর উপজেলার বুড়ীগোয়ালিনী এলাকার আমিনূর,তেজেন্দ্র,মানষ মন্ডল, শ্যামদুলাল,কওছার, মুজিবর জানান পাইপ দিয়ে লবন পানি উত্তোলন করতে না পারলে আমরা মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হবো। লবন পানি ব্যবহার করা জমিতে দু’চার বছর ধান চাষ হবে না। এব্যাপারে জানতে চাইলে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের জানান, সরকারি নির্দেশ মোতাবেক মাইকিং করা হচ্ছে। অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

 


error: Content is protected !!