করোনার উচ্চ ঝুঁকিতে ঢাকা-রাঙামাটি

0 ৫৪

অনলাইন ডেস্ক :

কোভিড ১৯-এর ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের মধ্যেই দেশের দুটি এলাকাকে উচ্চঝুঁকি হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।  সেই দুটি এলাকা হচ্ছে— ঢাকা ও রাঙ্গামাটি জেলা। এ ছাড়া ৬ জেলাকে মাঝারি মাত্রার ঝুঁকিপূর্ণ এবং ৫৪ জেলাকে কম ঝুঁকির এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা ড্যাশ বোর্ড ওয়েবসাইট থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সংক্রমণের মাত্রা বিবেচনায় সারাদেশকে লাল, হলুদ ও সবুজ- এই তিন ভাগে ভাগ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।  লাল রঙকে উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ, হলুদকে মধ্যম এবং সবুজ কম ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, উচ্চ ঝুঁকির এলাকা ঢাকা ও রাঙামাটি জেলায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১০ শতাংশ থেকে ১৯ শতাংশের মধ্যে।

মধ্যম মাত্রার ঝুঁকিতে থাকা রাজশাহী, রংপুর, নাটোর, লালমনিরহাট, দিনাজপুর, যশোরে শনাক্তের হার এখন ৫ শতাংশ থেকে ৯ শতাংশের মধ্যে।

আর সংক্রমণের হার শূন্য থেকে চার শতাংশের মধ্যে রয়েছে এমন ৫৪টি জেলাকে চিহ্নিত করা হয়েছে সবুজ রঙে।

কম ঝুঁকির জেলাগুলো হচ্ছে- চট্টগ্রাম, বগুড়া, গাজীপুর, কক্সবাজার, কুষ্টিয়া, নীলফামারী, বরগুনা, শেরপুর, মেহেরপুর, ঠাকুরগাঁও, ফেনী, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, পিরোজপুর, বাগেরহাট, নারায়ণগঞ্জ, নওগাঁ, ঝালকাঠি, খুলনা, পটুয়াখালী, কুড়িগ্রাম, জয়পুরহাট, ফরিদপুর, বরিশাল, চুয়াডাঙ্গা, মানিকগঞ্জ, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ময়মনসিংহ, রাজবাড়ী, সিলেট, সাতক্ষীরা, গোপালগঞ্জ, মৌলভীবাজার, নোয়াখালী, কিশোরগঞ্জ, গাইবান্ধা, শরীয়তপুর, মুন্সিগঞ্জ, নরসিংদী, খাগড়াছড়ি, ঝিনাইদহ, পাবনা, মাদারীপুর, মাগুরা, সুনামগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কুমিল্লা, নেত্রকোণা, ভোলা, টাঙ্গাইল, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং নড়াইল।

করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের কারণে আজ থেকে দেশে ১১ দফা বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে। যাত্রীবাহী বাসে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সভা-সমাবেশ বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।


error: Content is protected !!