দেবহাটায় দুই ইউপি সদস্যদের সাংবাদিক সম্মেলন

কর্তৃক Ahadur Rahman Jony
০ কমেন্ট 9 ভিউস

দেবহাটা প্রতিনিধি: দেবহাটা ইউপি সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দেয়ায় সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দেবহাটা সদর ইউনিয়ন পরিষদে উক্ত সাংবাদিক সম্মেলনটি করেন দেবহাটা ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মাহবুবুর রহমান বাবলু ও ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আজগার আলী। লিখিত বক্তব্যে মাহবুবুর রহমান বাবলু বলেন, তিনি দেবহাটা সদর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। তিনি দীর্ঘদিন সুনামের সাথে এলাকার ইউপি সদস্য হিসেবে মানুষের সেবায় কাজ করছেন। ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান ৭নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আজগার আলী পরপর ২ বার ইউপি সদস্য হিসেবে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করছেন। দেবহাটার ঐতিহ্যবাহী “রুপসী ম্যানগ্রোভ পর্যটন কেন্দ্র” টি প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে তারা প্রশাসনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত থেকে স্থানীয় প্রশাসন ও ইউপি চেয়ারম্যানের সাথে জড়িত থেকে রুপসী ম্যানগ্রোভটির উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। রুপসী ম্যানগ্রোভের পাশে যারা ঘের করে জীবিকা নির্বাহ করতো তাদেরকে প্রশাসন যখন থেকে লীজ দেয়া বন্ধ করে দিল তিনি ও ইউপি সদস্য আজগার আলী স্থানীয় চেয়ারম্যানের সাথে সম্পৃক্ত থেকে ঐ মানুষদেরকে সহযোগীতা করার জন্য স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সহযোগীতা করেন। সেসময় স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আলোচনার ভিত্তিতে যারা ঘের করে তাদেরকে অস্থায়ীভাবে ঘের করার অনুমতি দেয় এবং শর্ত থাকে যে সরকারের প্রয়োজনে তারা উক্ত জমি ছেড়ে দিবে। কিন্তু দুঃখের বিষয় উক্ত স্থানে অন্যান্যরা ঘের করার সুযোগ পেলেও দাদপুর গ্রামের বাবর আলীর ছেলে মনিরুজ্জামান মনি উক্ত স্থানে ঘের করার কোন সুযোগ পায়নি। বাবলু বলেন, তারা এই বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনকে বারবার বলা সত্ত্বেও অজ্ঞাত কারনে এই সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়মনি। তাদের ধারনা ম্যানগ্রোভের ম্যানেজার দিপঙ্কর ঘোষ স্থানীয় প্রশাসনকে ভুল বুঝিয়ে মনিকে ঘের করা থেকে বঞ্চিত করেছে। তারা জনপ্রতিনিধি হিসেবে বিষয়টি সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানান। প্রশাসন তাদের বিষয়টির সমাধান করবেন বলে আশ্বস্থ করেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় জেলা প্রশাসক বলার পরেও সেই কাজটি এখনো করা হয়নি। কিন্তু কয়েকদিন আগে ম্যানেগ্রাভের ম্যানেজার দিপঙ্কর ঘোষ বাদী হয়ে তাদের ২ ইউপি সদস্যের নামে থানায় যে সাধারন ডাইরী করেছে এবং পত্রিকায় যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে সেটা সম্পূর্ন্নভাবে মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। দাদপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রউফের ছেলে রোকনুজ্জামান রোকন। প্রশাসন যেদিন থেকে রোকনকে ওখানে কাজ ছেড়ে দিতে বলেছে সেদিন থেকে ম্যানগ্রোভে প্রায় ৭ মাসের অধিক সময় যায়না। তাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন করা ও সুনাম নষ্ট করার অসৎ অভিপ্রায়ে সম্পূর্ন নিজের মনগড়া ও কাল্পনিকভাবে এই কাজটি করা হয়েছে বলে সাংবাদিক সম্মেলনে বাবলু জানান। তিনি এই ধরনের হীন মানসিকতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান এবং সাথে সাথে বিষয়টির সুষ্টু তদন্তপূর্বক যারা দোষী হয় তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য আবেদন জানান।

রিলেটেড পোস্ট

মতামত দিন

error: Content is protected !!