পাইকগাছা ফসিয়ার রহমান মহিলা কলেজ অধ্যক্ষের দুর্নীতি; কারণ দর্শাতে নোটিশ

কর্তৃক Ahadur Rahman Jony
০ কমেন্ট 71 ভিউস

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি:খুলনার পাইকগাছায় ফসিয়ার রহমান মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে আনীত অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতের ১৫টি অভিযোগের মধ্যে ৫টি অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)। জনবল কাঠামো-২০১৮ মোতাবেক এ অধ্যক্ষের বেতন-ভাতা কেন স্থগিত করা হবে না, এ মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করে ৭ কর্মদিবসের মধ্যে জবাব দেয়ার নির্দেশও দেয়া হয়েছে।
জানা গেছে, গত ২৮ জানুয়ারী ২০১৯ তারিখে ফসিয়ার রহমান মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনিয়ম, দুর্নীতি ও অর্থ আত্মসাতসহ বিভিন্ন বিষয়ে অভিযোগ করেন কলেজটির সহকারী অধ্যাপক ও শিক্ষক-প্রতিনিধি শেখ রুহুল কুদ্দুস ও সহকারী অধ্যাপক সুধাংশু কুমার মন্ডল। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক মাউশি অধিদপ্তরের খুলনা অঞ্চলের পরিচালক অধ্যাপক শেখ হাররুনর রশিদ এবং উপ-পরিচালক (কলেজ) এস কে মোস্তাফিজুর রহমান তদন্ত সম্পন্ন করেন। গত ২৩ জুলাই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক স্মারকে তদন্তে ১৫টি অভিযোগের মধ্যে সত্য-মিথ্যা যাচাই বাছাই করে ৫টির(৩, ৭, ১০, ১২, এবং ১৩নং) ব্যাপারে অনিয়মের অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে বলা হয়।
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)-র কারণ দর্শানোর নোটিশে দেখা যায়, বৃত্তি প্রদানের অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি, অনুদান দেখিয়ে দাতা সদস্য করা, নিয়মিত হাজিরা খাতায় অধ্যক্ষের স্বাক্ষর না থাকা, প্রতিষ্ঠানে বই ক্রয়ে অনিয়ম, জিপিএ ৫ পাওয়া ছাত্রীর অনুদান ও পোশাক বাবদ অর্থ না দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নিজের কাছে রেখে দেয়াসহ আর্থিক বিধির পরিপন্থি এসব অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিয়ে অধ্যক্ষকে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে। নোটিশে আরও উলে¬খ করা হয়, ‘জনবল কাঠামো-২০১৮ এর ১৮.১ (খ) ধারা মোতাবেক কেন আপনার বেতন ভাতা স্থগিত করা হবে না তার জবাব ৭ কর্মদিবসের মধ্যে দাখিলের নির্দেশ প্রদান করা হলো।

রিলেটেড পোস্ট

মতামত দিন

error: Content is protected !!